Follow Us:
বিশেষ ঘোষণা:-
আসসালামু আলাইকুম ওরাহমাতুল্লাহ, সম্মানিত ভিজিটরগণ, আমাদের ওয়েব সাইটের আপডেটের কাজ চলছে, ভিজিট করতে সাময়ীক অসুবিধা হতে পারে, তাই আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

Category: বিচার ব্যবস্থা

উত্তর:- যদি মামলা করে কোন অধিকার আদায় করার প্রয়োজন হয়, তাহলে উক্ত মামলা পরিচালনার দায়িত্ব বাদীর উপরই থাকবে, বিবাদীর উপর নয়। কেননা শরীয়াতের মূলনীতি হলো অধিকার যার খরচও তার। সুতরাং প্রশ্নেবর্ণিত সূরতে বাদী যেহেতু নিজের হক আদ...

উত্তর:-ইসলামী শরীয়ায় কোন অপরাধের শাস্তি বাস্তবায়নের অধিকার একমাত্র ইসলামী রাষ্ট্র কতৃক নিযুক্ত  বিচারক ও তার পক্ষ থেকে নিযুক্ত ব্যক্তিদের । ব্যক্তিগতভাবে আইন হাতে তুলে নিয়ে শাস্তি দেয়ার অনুমতি নেই। সুতরাং প্রশ্নেবর্ণিত সুরতে বিচারকের রায় ব্যতীত মহ...

উত্তর:- ইসলামি দৃষ্টিতে শরয়ী কোন বিষয়ে সাক্ষি দেয়ার জন্য আদালত যদি কাউকে তালাশ করে তাহলে সেক্ষেত্রে সাক্ষী দেয়ার জন্য টাকা নিতে পারবে না। আর শরয়ী সাক্ষী ব্যতিত অন্য কোন সাক্ষীর ক্ষেত্রে রাহ-খরচসহ সময় ব্যয় বাবদ বিনিময় নিতে পারবে। মুসনাদুস সিহাব - ১...

উত্তর :- যে সমস্ত  অপরাধের শাস্তি শরীয়ত কর্তৃক নির্ধারিত। তাতে বান্দার হস্তক্ষেপ করার কোন সুযোগ নাই। যদি করেও ফেলে তবে তার কোন  গ্রহণযোগ্যতা  নাই। তাই, বর্ণিত সুরতে অনৈসলামিক আদালত কর্তৃক খুনিকে যে শাস্তি দেয়া হয়েছে ইসলামি আদালতে তার কোন ভিত্তি বা...

উত্তর:- শরীয়া আইনে মৌলিক কিছু দিক বিবেচনা করে মৃত্যুদণ্ড জনিত মামলায় মহিলাদের সাক্ষী অগ্রহণযোগ্য করা হয়েছে। এছাড়া অন্যান্য ক্ষেত্রে দুইজন মহিলাকে একজন পুরুষের সাক্ষীর সমমর্যাদা দেওয়া হয়েছে। সুতরাং প্রশ্নোক্ত সুরতে শুধুমাত্র মহিলার সাক্ষীর মাধ্যমে ...

উত্তর:- মুসলমানদের জীবন যাত্রা পরিচালনা ও তাদের মাঝে দ্বন্ধ বিবাদ সমাধানের জন্য কুরআন ও সুন্নাহ অনুযায়ী মুসলিম বিচারকের একান্ত প্রয়োজন। কারণ অনেক বিবাদ এমন রয়েছে যা ইসলামি ফায়সালা ছাড়া সমাধান দেওয়া সম্ভব নয়। বিধায়, মুসলমানদের জন্য ধর্মীয় বিষয়াবলীত...

‍উত্তর : - শরীয়তের বিধানুযায়ী ব্যভিচার সাব্যস্ত হওয়ার জন্য প্রত্যক্ষ দর্শী চারজন পুরুষ সাক্ষ্য দিতে হবে। তাই প্রশ্নোক্ত সুরতে একজনের দেখার দ্বারা যিনার দণ্ড প্রয়োগ করা যাবে না।   দুররুল মুখতার- ৪/৬/ ৬৩। আল বাহরুর রায়েক- ৫/৭। ফাতাওয়ায়ে ক...

উত্তর :- কবিরা গুনাহকারী ব্যক্তি ফাসেকের অন্তর্ভূক্ত। আর ফাসেকের সাক্ষ্য শরয়ীভাবে সাধারণত গ্রহণযোগ্য হয় না। তবে হ্যা, যদি এবিষয়ে অন্য কাউকে সাক্ষী হিসেবে না পাওয়া যায় আর কাজির কাছে তার সাক্ষ্যের ব্যাপারে সততার শত ভাগ নিশ্চয়তা থাকে। তাহলে অপারগ অবস্থ...

উত্তর :- কোন মামলায় রায় দেয়ার জন্য বাদী ও বিবাদিকে স্বশরীরে বা প্রতিনিধির মাধ্যমে আদালতে উপস্থিত থাকা জরুরী। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সুরতে অনুপস্থিত ভাইয়ের পক্ষ থেকে অন্য ভাইকে মামলা পরিচালনা করার অনুমতি দেয়া হয়ে থাকে। তাহলে সে কোন প্রকার শর্ত ছাড়াই...

উত্তর:- ইসলামী বিচার ব্যবস্থায় হত্যাকে কয়েক প্রকারে বিভক্ত করা হয়। এবং প্রত্যেক প্রকারের জন্য আলাদা আলাদা বিধান আরোপ করা হয়। আর হত্যার প্রকারগুলোর একটা হলো কতলে শিবহে আমাদ তথা, বাহ্যত ইচ্ছাকৃত হত্যার মত। এ ধরনের হত্যার ক্ষেত্রে দিয়ত ও কাফফারা উভয়টা ও...

উত্তর:- ইসলামী শরীয়তে একজন অমুসলিমের সাক্ষ্য মুসলমানদের জন্য তখনই ধর্তব্য হবে যখন বিষয়টা মুসলমানের পক্ষে হবে। মুসলমানদের বিপক্ষে একজন অমুসলিমের সাক্ষ্য কিছুতেই গ্রহণযোগ্য নয়। বিধায় প্রশ্নে বর্ণিত সুরতে হিন্দুদের সাক্ষ্য মুসলমানদের পক্ষে হলে গ্রহণয...

উত্তর :- শরীয়তের দৃষ্টিতে মুসলমানদের কাজি বানানোর দায়িত্ব মুসলমান হাকিমের উপর। যদি মুসলমান হাকিম না থাকে তখন এ দায়িত্ব বর্তাবে মুসলিম উম্মাহর উপর। তবে যদি কোন অমুসলিম হাকিম মুসলমানদের জামাতের অনুমতি নিয়ে  কোন মুসলমানকে কাজি হিসেবে নির্ধারণ করে তাহরে...

উত্তরঃ হাদীসের ভাষ্যমতে ৩ ধরনের ব্যাক্তি শরীয়তের হুকুম পালনের ব্যাপারে আদিষ্ট নয়। তারা হলো পাগল ঘুমন্ত ব্যাক্তি ও নাবালেগ শিশু। সুতরাং প্রশ্নে বর্নিত সুরতে স্বামী পাগল হওয়ায় স্ত্রীকে হত্যা করার দ্বারা স্বামীর উপর কেসাস আ...

উত্তরঃ শরীয়তের বিধানে চারজন সাক্ষীর সাক্ষ্যর দ্বারা যেমন যিনা সাব্যস্ত হয় তেমনি কেউ চারবার নিজে স্বীকারোক্তি দিলেও সে যিনাকারী বলে গন্য হবে।আর শরয়ী শাস্তি প্রয়োগ করার জন্য ইসলামী রাষ্ট্র হওয়া জরুরী। তাই প্রশ্নে বর্নিত স...

উত্তরঃ শরীয়তের মূল নীতি হলো পরস্পর বিবাহ সহিহ হয় এরকম দুজন মহিলাকে একসাথে একজন পুরুষের জন্য বিবাহ করা বৈধ আছে। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সুরতে যেহেতু ফাতেমার সাথে তার সৎ মার বিবাহ বৈধ আছে (সৎমাকে ছেলে ধরে নিলে) বিধায় যায়েদ স...

Copyright 2021 - All Rights Reserved