Follow Us:
বিশেষ ঘোষণা:-
আসসালামু আলাইকুম ওরাহমাতুল্লাহ, সম্মানিত ভিজিটরগণ, আমাদের ওয়েব সাইটের আপডেটের কাজ চলছে, ভিজিট করতে সাময়ীক অসুবিধা হতে পারে, তাই আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

Category: ক্রয় বিক্রয়

উত্তর:- শরয়ী দৃষ্টিতে যদি কোন ব্যক্তি নিজের জায়গায় পুকুর খনন করে অত:পর সেখানে পানি হেফাজত করে এবং তা দেখা-শুনা করে, তাহলে ঐ পানি তার মালিকানা হওয়ায় তা ক্রয়-বিক্রয় করা জায়েয আছে। - আল হিদায়া- ৩/২০, হাশিয়া ইবনে আবেদীন-৭/২৫৮,...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে একই বস্তু ভিন্ন চুক্তিতে পরস্পর লেনদেন করা বৈধ। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে যেহেতু ব্যাংক ও গ্রাহক উভয়ের সন্তুষ্টিতে পণ্যের একাধিক ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে। এবং এর প্রচলনও রয়েছে। তাই উক্ত পদ্ধতিতে লেনদেন করা সহিহ হবে।   বা...

উত্তর: হানাফি মাজহাবের ফতোয়াযোগ্য মতামত হলো; ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের সন্তুষ্টিতে বেচা-কেনার মধ্যে বহুল প্রচলিত কোন শর্ত করলে ক্রয়-বিক্রয়ের চাহিদার বিপরীত হলেও ক্রয়-বিক্রয় শুদ্ধ হবে। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে যেহেতু ফ্রি সার্ভিসের শর্তে ক্রয়-বিক্রয়...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে অন্যের মালিকানাধীন বস্তু ক্রয়-বিক্রয় করা জায়েয নেই। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে যেহেতু পিতা-মাতার জীবিতাবস্থায় সন্তানরা তাদের পিতা-মাতার সম্পদের মালিক হয় না, তাই তাদের জীবিত থাকাকালে তাদের সম্পত্তি বিক্রি করা জায়েয হবে না। ...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে ঋণ দাতার জন্য বন্ধককৃত বস্তু থেকে উপকৃত হওয়া বৈধ নয়। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত  সূরতে উক্ত বন্ধককৃত জমি থেকে দুই এক বছর যে ফায়দা ভোগ করা হলো তা সুদের অন্তর্ভুক্ত হবে, যা হারাম। তবে এক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি হল জমির মালিক ঋণ দাতাকে জমি...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের কল্যাণার্থে বিক্রিত পণ্য ক্রয়-মূল্য থেকে কম-বেশ না করে মূল দামে ফেরত নেয়া ও দেয়া উভয়টাই বৈধ। বরং হাদীসের ভাষ্য অনুযায়ী অধিক সাওয়াবের কাজ। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত  সূরতে ফেরত দেয়ার শর্তে কোন পণ্য ক্রয় করাতে ...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে শ্রমিককে তার শ্রমের দ্বারা সৃষ্ট বস্তু থেকে পারিশ্রমিক দেয়া প্রচলনের ভিত্তিতে বৈধ আছে। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে পশু বর্গা দেয়া এবং পারিশ্রমিক হিসেবে দুধ এবং লভ্যাংশের অর্ধেক দেয়া বৈধ হবে।     ফাতাওয়ায়ে কা...

উত্তর: শরয়ী নীতিমালা অনুযায়ী শরীয়াহ কর্তৃক বা ব্যবসায়িক মহলে পণ্য হিসাবে স্বীকৃত এমন বস্তু পরস্পর সম্মতিতে লেনদেন করা বৈধ। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে নিজের নামের লাইসেন্স ভাড়া দেয়া জায়েয হবে না।   আল বাহরুর রায়েক ৭-৫০৭, ফিকহুল বুয়ু ১-২...

উত্তর: শরয়ী দৃষ্টিতে মুযারাবার ক্ষেত্রে কারবার শেষ হওয়ার পূর্বে অনুমান করে লভ্যাংশ বন্টন করা জায়েয আছে। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে বিনিয়োগকৃত সদস্যদের মাঝে চুড়ান্ত হিসাব-নিকাশের পূর্বে অনুমান করে এক হাজার টাকা করে দেয়া এবং বছর শেষে চুড়ান্তভাবে লা...

উত্তর :- কেনা-বেচা সহিহ হওয়ার জন্য শর্ত হলো উক্ত লেন-দেনটি ইজাব ও কবুল  তথা কেনা - বেচার প্রস্তাব করণ ও গ্রহণের মাধ্যমে হতে হবে। এবং ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়কেই চুক্তিলব্ধ বস্তুর উপর স্ব স্ব মালিকানা প্রতিষ্ঠা করা।  তবে, এই ইজাব ও কবুল মৌখিক ও লিখিতভাবে...

উত্তর :- শরীয়তের দৃষ্টিতে বাকিতে  কম-বেশী করে ক্রয়-বিক্রয় সহীহ হওয়ার জন্য শর্ত হলো মুল্য ও তা আদায় করার সময় উল্লেখ থাকতে হবে। তাই প্রশ্নোক্ত সুরতে মূল্য ও তা আদায়ের সময় উল্লেখ থাকলে বাকিতে বা কিস্তিতে কম-বেশী করে কেনা-বেচা করাতে কোন অসুবিধা নাই। ...

উত্তর :- শরয়ী দৃষ্টিতে উকিল যদি নির্দিষ্ট পণ্য ক্রয় করার পর টাকা বিক্রেতাকে পরিশোধের পূর্বেই হারিয়ে ফেলে। তাহলে এর দায়ভার তাকেই বহন করতে হবে। আর যদি মুয়াক্কিল পণ্য ক্রয় করার পর কাউকে উকিল বানিয়ে অর্থ পরিশোধ করার দায়িত্ব  অর্পন করে। আর সে এ অর্থ হারিয়...

উত্তর:- শরীয়াতের পরিভাষায় মুদারাবা বলা হয়, এক ব্যক্তির শ্রম এবং অপর ব্যক্তির  মূলধনের মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করা। এতে উভয়পক্ষ লাভবান হয়। কিন্তু যদি কেউ এধরণের লেনদেনের মাঝে নির্দিষ্টহারে লভ্যাংশ নির্ধারাণ করে, তাহলে তা বৈধ হবে না। ...

উত্তর:- ইসলামী শরীয়াহ বৈধ পন্থায় ক্রেতা-বিক্রেতাকে লাভবান হওয়ার সুযোগ দিয়েছে। তাই নগদ ও বাকিতে বিক্রিতে কম-বেশি করা জায়েয আছে। কেননা নগদ টাকা বাকি টাকার তুলনায় সুবিধা  বেশি। আর বাকিতে ঐ সুবিধা না থাকায় তাতে টাকার পরিমাণ বৃদ্ধি করা জায়েয আছে।...

উত্তর:- লভ্যাংশ বন্টনের হার উল্লেখ না করে  সমান মূলধন ও শ্রম দেওয়ার শর্তে যৌথ ‍উদ্যোগে সংগঠিত ব্যবসাকে শরীয়াতের ভাষায় ‍شركة عناد (শিরকাতে ঈনাদ) বলে। এধরণের লেনদেন বৈধ। সুতরাং প্রশ্নেবর্ণিত সূরতটিও শিরকাতে ঈনাদ এর অন্তর্ভুক...

Copyright 2021 - All Rights Reserved